মুজিবনগরের ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত মানুষ।। দোকানগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়।।

মুজিবনগর নিউজ২৪.কম: ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে মুজিবনগর উপজেলার দোকানগুলোতে চলছে ঈদের সমাহার। ছোট বড় সবাই ব্যস্ত ঈদের কেনাকাটা নিয়ে। উপজেলার প্রত্যেকটি গ্রাম থেকে আসছে কেনাকাটা করতে। তাইতো কাপড়ের দোকান গুলো থেকে শুরু করে অন্যান্য দোকানে মানুষের উপচে পড়া ভীড়। তবে মার্কেটগুলোতে পুরুষদের তুলনায় মেয়েদের ভিড় বেশি। অপরদিকে বয়স্কদের চেয়ে তরুণ-তরুণীদের কেনাকাটায় ব্যস্ততা বেশি। গরমকে উপেক্ষা করে থেমে নেয় কেনাকাটার। পোশাকের দাম একটু বেশি হলেও ক্রেতাদের ভিড়ে মুখরিত নগরীর মার্কেট গুলোতে।
মুজিবনগর উপজেলা কেদারগঞ্জ বাজারে হিরা ফ্যাশান, সোনিয়া ফ্যাশান, মাষ্ঠার বস্ত্রবিতান, ফ্যাশান পয়েন্ট, পিংকি ফ্যাশান, মুকুট ফ্যাশান, অনন্যা ফ্যাশান, রাজধানী ফ্যাশানসহ অবস্থিত দোকান গুলোতে মানুষের উপচে পড়া ভীড় চোখে পড়ার মত। শাড়ি, পাঞ্জাবী থ্রি-পিসসহ অন্যান্য পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছে নগরীর এফ এম বাজার, মেসার্স কুতুব ক্লথ ষ্টোরসহ ছোট বড় বিভিন্ন মার্কেট। পাশাপাশি তৈরি পোশাকের দোকান, জুতা-স্যান্ডেল ও কসমেটিক্স এর দোকানগুলোতেও উপচে পড়ছে ক্রেতাদের ভিড়। তারুণদের শার্ট, প্যান্ট ও পাঞ্জাবির দোকানগুলোতে চোখে পড়ার মত ভিড় লক্ষ করা যাচ্ছে। এবারের ঈদের  বিশেষ আকর্ষন তরুন-তররুণীদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে ভারতীয় পোশাক, দেশী-বিদেশী হাতের তৈরি থ্রি-পিস, লেহাঙ্গা, জিন্স প্যান্ট, পাঞ্জাবী। শাড়ির মধ্যে ক্রেতারা পছন্দ করছেন টিস্যু সিল্ক, টাঙ্গাইলের শাড়ি, ও ঢাকাই জামদানি শাড়ি। এফ এম বাজারের মালিক জানান, আমার এখানে এই প্রথম একরেটে পোশাক বিক্রয় শুরু করি। সকল জিনিসের বারকোডযুক্ত রেট দেওয়া আছে। ক্রেতাদের জিনিস কিনতে এসে কোন রকম ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে না। যার যেটা মন চাচ্ছে সে সেটাই বডিতে দাম দেখে পছন্দমত পোশাক নিয়ে যেতে পারছে। নগরীর রাজধানী ফ্যাশানের মালিক সুমন আলী জানান, ১০ রোজার পর থেকে দোকানে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। আশা করছি এ বছর বেচাকেনা ভালোই হবে। ঈদে কেনাকাটা করতে আসা মুজিবনগর উপজেলার কয়েকটি গ্রামের কিছু ক্রেতা জানান, পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মার্কেটে এসে বিভিন্ন দোকান ঘুরছি। সব দোকানেই গত বছরের চেয়ে এবার  শাড়ি, থ্রিপিসহ  বিচিত্রময় ডিজাইনের পোশাকের সমাহার ঘটেছে। তবে প্রতি বছর ঈদের মত পোশাকের দাম এবারো একটু বেশি। এত দাম দিয়ে পোশাক কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এ বিষয়ে কেদারগঞ্জ বাজার কমিটির সভাপতি ও মেসার্স কুতুব ক্লথ ষ্টোরের সত্বাধীকারী কুতুব মল্লিক জানান,  এ মাসের প্রথম থেকেই বেচাকেনা শুরু হয়েছে। গত বছরের মতই এ বছর দাম কিছুটা বেড়েছে। তারপরও ক্রেতারা তাদের সাধ্যমত পছেন্দের জিনিস কিনছেন। সবমিলিয়ে বিক্রি ভালই! মূল্য বৃদ্ধির অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ঈদের সিজিনে সব সময় পোশাকের দাম একটু  বেশি দামে কেনতে হয়। তাছাড়া পরিবহন খরচও বেড়েছে। সবমিলিয়ে দাম ক্রেতাদের নাগালের মধ্যেই রাখার চেষ্টা করা হয়েছে।
এদিকে ঈদের কেনাকাটায় যাতে ব্যাঘাত না ঘটে এজন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানান, মুজিবনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম। ক্রেতাদের নিরাপত্তায় বিভিন্ন মার্কেটের সামনে পুলিশ টহল দিচ্ছে। এ ছাড়া সাদা পোশাকেও পুলিশ নজরদারি করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *