গাংনীতে পানিতে ডুবিয়ে শিশুকে হত্যা পরে মায়ের আত্মহত্যা॥

মুজিবনগর নিউজ২৪.কম: মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের কসবা গ্রামে ২ বছরের শিশুকে হত্যা ও ঐ মায়ের আত্ম হত্যার খবর পাওয়া গেছে। বুধবার দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আদুরি খাতুন চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা থানার বড় গাংনী গ্রামের লোকমান হোসেন এর স্ত্রী ও নিহত শিশু কন্যা সামিয়ার মা। এলাকা সুত্রে জানা গেছে, ঘটনার আগের দিন মঙ্গলবার নিহত আদুরির স্বামী তাকে নিতে অসে তার নিজ বাড়িতে ফিরে নিয়ে যাওয়ার জন্য। ঐ দিন আদুরি ও তার স্বামীর মধ্যে বাক বিতন্ডা হয় বলে জানা যায়। স্থানীয়রা আরো জানান, ঘটনার দিন সকাল থেকে নিহত আদুরি খাতুন তার শিশু মেয়ে সামিয়াকে প্রায় সারা দিন স্থানীয় দোকান থেকে মিষ্টি দ্রব্যাদি খেতে দেয়। ঐ গ্রামের দোকানদার পশ্চিম পাড়ার সিদ্দিকের ছেলে রফিকুল জানান, তাদের মৃত্যুর খবর পাওয়ার দশ মিনিট আগে আমার দোকান থেকে আদুরি খাতুন ও তার শিশু কন্যা দু’জনে এসেছিলো এবং কিছু মিষ্টি দ্রব্যাদি ক্রয় করে। ডোবা পাড়ায় চাতালের ধারে বসে আদুরি খাতুন তার শিশু কন্যাকে কিছু খাওয়াতে দেখে চাতালে কর্মরত শ্রমীক।
স্থানীয়রা আরো জানান, চাতালের অদুরে একটি ডোবা আছে সেখান থেকে শিশু কন্যার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় শিশু কন্যার হাতে জড়িয়ে থাকা তার মায়ের ওড়না পাওয়া যায়। স্থানীয়দের ধারণা নিহত আদুরি খাতুন তার শিশু কন্যাকে ডোবাতে ফেলে দিয়ে পরে সে নিজ ঘরে আত্ম হত্যা করে।
আদুরি খাতুনের নানি কাঞ্চন মালা জানান, আমি মাঠে থেকে বাড়ি ফিরে দেখি ঘরের আড়ার সাথে গলায় ওড়নার ফাঁস লাগানো অবস্থায় আদুরি ঝুলছে। পরে চিৎকার করে প্রতিবেশিদের ডাকি। তিনি আরো জানান, সাথে সাথে শিশু কন্যা সামিয়ার খোঁজ করলে বাড়ির পাশে ডোবা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় শিশুটির হাতে জড়ানো তার মায়ের ওড়না পাওয়া যায়। কী কারণে এ ঘটনা জানতে চাইলে আদুরির নানি তার কারণ বলতে পারেনি। তবে স্থানীয় সুত্রে আরো জানা যায়, আদুরি খাতুনের স্বামী লোকমানের আগের পক্ষের এক সন্তানের সাথে বিবাদ হওয়ায় সে তার নানি বাড়িতে চলে আসে।
পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। গাংনী থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, আপাতত একটি অপমৃত্যু মামলা নেওয়া হয়েছে তবে শিশুটিকে হত্যার বিষয়ে কে জড়িত আছে তা ময়না তদন্ত শেষে অধিকতর তদন্ত করে বলা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *