আগামীকাল থেকে খুলনা বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট

চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহনের বাসচালক জামির হোসেনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের প্রতিবাদে খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন আঞ্চলিক কমিটি। রবিবার ভোর ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্যে খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় এই ধর্মঘট পালিত হবে। শনিবার দুপুর ১টার দিকে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। ফলে আগামীকাল সকাল ৬ টা থেকে মেহেরপুর থেকে ছেড়ে যাবে না আন্তঃজেলা ও দুরপাল্লার কোন পরিবহন।
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মিক ফেডারেশন আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বক্স দুদু জানিয়েছেন, ৩৪টি বেসিক ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের মুখে শনিবার তারা পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিতে বাধ্য হয়েছেন।
শনিবার বেলা ১১টায় যশোরের চাঁচড়া এলাকায় আঞ্চলিক কমিটির অফিসে (শ্রমিক ভবন) জরুরি সভা শুরু হয়। সভায় আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টুর সভাপতিত্বে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বক্তৃতা করেন।
বক্তারা দাবি করেন, বাসচালক (চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স) জামির হোসেনের মামলা ৩০৪/খ ধারায় মামলা হওয়ার কথা। কিন্তু তা না করে বিচার হয়েছে ৩০৪/ক ধারায়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ার পরও বিচারক ‘বিশেষ মহলের’ চাপে তাকে শাস্তি দিয়েছেন।
শ্রমিক নেতারা জানান, শ্রমিকরা যাবজ্জীবন কারাদন্ডের রায় মাথায় নিয়ে গাড়ি চালাবে না। ওইসময় শ্রমিকরা আন্দোলনের কঠোর কর্মসূচির দাবি জানাতে থাকেন। একপর্যায়ে উত্তেজিত শ্রমিকরা চেয়ার ছুঁড়তে থাকেন। সেসময় মঞ্চে থাকা নেতৃবৃন্দ মিটিংস্থল ছেড়ে যেতে বাধ্য হন। ২০ মিনিট পরে নেতৃবৃন্দ ফের মিটিংস্থলে এসে শ্রমিকদের শান্ত করেন এবং অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
সভায় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশন নেতা সাদেক আহমেদ খান, রবিউল হোসেন রবি, মোর্ত্তজা হোসেন, জেনারেল ইসলাম, এমদাদুর রহমান, জাহিদুর রহমান, আলমগীর সিদ্দিকী প্রমুখ।
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ১৩ আগস্ট মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার জোকা এলাকায় ঢাকা আরিচা মহাসড়কে বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে মাইক্রোবাস আরোহী তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন। ওই ঘটনায় বাস চালক চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আলুকদিয়া ইউনিয়নের দৌলাতদিয়াড় স্কুল পাড়ার মরহুম আব্দুর রহিমের ছেলে চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহন চালক জামির হোসেনকে জামির হোসেনকে গত বুধবার মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আল মাহমুদ ফায়জুল কবীর তার উপস্থিতিতে যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *